সূরা ফালাক বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ সহ

সূরা ফালাক পবিত্র কুরআনের ১১৩ তম সূরা। সূরা ফালাক এর আয়াতের সংখ্যা ৫, রুকুর সংখ্যা ১। সূরাটি মদিনায় অবতীর্ণ হয়েছিল, তাই এটি মাদানী সূরার অন্তর্গত। সূরাটি মূলত একটি প্রার্থনা সূরা। এই সূরার মাধ্যমে মানুষ শয়তানের কুফল থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করে। আজ আমরা সূরা ফালাক নাযিল এর প্রেক্ষাপট, উচ্চারণ সহ বাংলা অনুবাদ এবং এর গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে একটা পরিপূর্ণ ধারনা দেওয়ার চেষ্টা করবো। আশা করি আপনাদের অনেক উপকারে আসবে। তো চলুন শুরু করি-

 

 


সূরা ফালাক

 

সূরা ফালাক

আরবিঃ بِسْمِ اللہِ الرَّحْمٰنِ الرَّحِیْمِ
উচ্চারণঃ বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহীম
অনুবাদঃ পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে (শুরু করছি)।

আরবিঃ قُلْ أَعُوذُ بِرَ‌بِّ الْفَلَقِ
উচ্চারণঃ কুল্ আ‘ঊযু বিরব্বিল্ ফালাক্বি
অনুবাদঃ বলুন, আমি আশ্রয় গ্রহণ করছি প্রভাতের পালনকর্তার।

আরবিঃ مِن شَرِّ‌ مَا خَلَقَ
উচ্চারণঃ মিন্ শার রিমা-খলাক্ব
অনুবাদঃ তিনি যা সৃষ্টি করেছেন, তার অনিষ্ট থেকে।

আরবিঃ وَمِن شَرِّ‌ غَاسِقٍ إِذَا وَقَبَ
উচ্চারণঃ অমিন্ শাররি গ-সিক্বিন্ ইযা-অক্বাব্
অনুবাদঃ অন্ধকার রাত্রির অনিষ্ট থেকে, যখন তা সমাগত হয়।

আরবিঃ وَمِن شَرِّ‌ النَّفَّاثَاتِ فِي الْعُقَدِ
উচ্চারণঃ অমিন্ শাররি ন্নাফ্ফা-ছা-তি ফিল্ ‘উক্বদ্
অনুবাদঃ গ্রন্থিতে ফুঁৎকার দিয়ে জাদুকারিনীদের অনিষ্ট থেকে।

আরবিঃ وَمِن شَرِّ‌ حَاسِدٍ إِذَا حَسَدَ
উচ্চারণঃ অমিন্ শাররি হা-সিদিন্ ইযা-হাসাদ্
অনুবাদঃ এবং হিংসুকের অনিষ্ট থেকে যখন সে হিংসা করে।

 

 

সূরা ফালাক এর শানে নুযুল

আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, একজন ইহুদী রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর উপর জাদু করেছে, তখন তিনি মাঝে মাঝে দিশেহারা হয়ে যেতেন এবং যা তিনি করেন নি তাও তিনি করেছেন বলে অনুভব করতেন।

একদিন তিনি আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা ‘আনহা কে বললেন, আমার রোগ কি, আল্লাহ আমাকে বলেছেন। (স্বপ্নে) দুজন মানুষ আমার কাছে এসেছেন। একজন আমার মাথার কাছে এবং অন্যজন পায়ের কাছে বসেছিল। মাথার পাশে বসা লোকটি অন্য লোকটিকে বলল, তার অসুস্থতা কি? আরেকজন বলল, সে জাদুগ্রস্থ। প্রথম ব্যক্তি জিজ্ঞেস করল: কে জাদু করেছে? আরেকজন বললেন, লাবিদ ইবনে আসাম (বনু জুরাইকের একজন ইহুদি মুনাফিক)। আবার প্রশ্ন হল: কোন বস্তু দ্বারা জাদু করেছিল? উত্তর হলো, চুল এবং চিরুনিতে। আবার প্রশ্ন হল, এটা কোথায়? উত্তর হল যে ‘জারওয়ান’ কূপের মধ্যে একটি পাথরের নিচে চাপা আছে। অতপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সেই কূপের কাছে গেলেন এবং বললেন, আমাকে স্বপ্নে সেই কূপ দেখানো হয়েছে। তারপর সে বস্তুটিকে সেখান থেকে লোক মারফতে আনা হল। তারপর সূরা নাস এবং সূরা ফালাক এর এগারোটি আয়াত পড়ে চুলের মধ্যে ফু দিলেন। আর সঙ্গে সঙ্গে চুলের ‍গির খুলে গেলে এবং মুহাম্মদ (সঃ) সুস্থ হয়ে গেলেন। আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বললেন, আপনি তাদের নাম ঘোষণা করনি কেন? (যে, এই ধরনের ব্যক্তি আপনার উপর জাদু করেছে) আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আল্লাহ আমাকে সুস্থ করেছেন। এবং আমি চাইনি যে মানুষের মাঝে প্রতিক্রিয়া হোক। [বুখারী: ৫৭৬৫]

যাইহোক, এটি মনে রাখা গুরুত্বপূর্ণ যে জাদু করা নবুয়তের বিরোধী নয়। যারা জাদুর প্রকৃতি সম্পর্কে অবগত নন তারা ভাবে জাদু কিভাবে আল্লাহর রসূলের উপর কাজ করতে পারে তা তাদের অবাক করে। এখানে এটা জানা জরুরী যে, যাদুর ক্রিয়া আগুন, পানি ইত্যাদির ক্রিয়ার মতোই। এগুলো সবই স্বাভাবিক। জাদুর প্রতিক্রিয়া এমনই একটি জিনিস। তাই জাদু দ্বারা তাদের আক্রান্ত করা অবাস্তব নয়। [আদওয়াউল বায়ান]

সূরা ফালাকের গুরুত্ব ও ফজিলত সমূহ

– হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা বর্ণনা করেন, ‘প্রতিদিন রাতে যখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ঘুমাতে যেতেন, তখন তিনি তাঁর দুই হাত একসাথে রাখতেন। তারপর তিনি সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক, সূরা নাস তেলাওয়াত করতেন এবং দুই হাতে ফুঁ দিতেন। তারপর সে যতটা সম্ভব তার হাত শরীরের উপর নাড়াচাড়া করতেন। তিনি মাথা, মুখ এবং শরীরের সামনের অংশ থেকে শুরু করতেন। তিনি এটি তিনবার করতেন। ‘(বুখারী)

– হাদিসের আরেকটি বর্ণনা অনুসারে, শয়তানের কুফল ও মায়াবীতা এড়ানোর জন্য সকাল এবং সন্ধ্যায় এই সূরাটি অনুশীলন খুবই কার্যকর। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি সূরা ইখলাস এবং এই দুটি সূরা (সূরা ফালাক ও সূরা নাস) সকাল-সন্ধ্যা পাঠ করবে সে সকল বিপদ থেকে নিরাপদ থাকবে।’ (তিরমিযী)

– ফজর ও মাগরিবের ফরজ নামাজের পর সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক এবং সূরা নাস তিনবার পাঠ করা সুন্নাত। অন্যান্য ফরজ নামাজ আদায়ের পর একবার এই তিনটি সূরা পাঠ করার কথা বলা হয়েছে। ‘(আবু দাউদ)

– হযরত উকবা ইবনে আমের (রাদিয়াল্লাহু আনহু) বর্ণনা করেছেন যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: তুমি কি জান না যে, আজ রাতে আমার উপর যে আয়াত নাযিল হয়েছে তার মত কোন আয়াত এর আগে দেখা বা শোনা হয়নি । এবং তা হল – কুল আউজু বি রাব্বিল ফালাক এবং কুল আউজু বি রাব্বিন নাস। ‘(মুসলিম)

– একবার এক ইহুদি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর উপর যাদু করেছিল। যার কারণে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন জিবরাইল (আঃ) নবী (সাঃ) কে বললেন যে একজন ইহুদী তাকে জাদু করেছে এবং যে জিনিস দিয়ে তাকে মোহিত করা হয়েছে তা একটি কূপের মধ্যে একটি পাথরের নিচে রয়েছে।

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তা কূপ থেকে উদ্ধারের জন্য লোক পাঠিয়েছিলেন। সেখানে তাঁর চুলের মধ্যে করা কয়েকটি গিঁট পাওয়া গেছে। তারপর তিনি একসাথে সূরা নাস এবং ফালাক পাঠ করলেন এবং ফুঁ দিলেন এবং সাথে সাথে গিঁট খুলে গেল এবং নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে গেলেন। ‘

হযরত ওকবা ইবনে আমের রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন যে, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন: আমি আপনাকে তিনটি সূরা সম্পর্কে বলছি যা নাযিল হয়েছে তাওরাত, ইনজিল, জবুর এবং কোরআনে। রাত্রে ঘুমাতে যাবেন না যতক্ষণ না আপনি সূরা ইখলাস, ফালাক এবং নাস পাঠ করেন। ওকবা বললেন, “সেদিনের পর থেকে আমি কখনোই এই নিয়ম পরিত্যাগ করিনি।” (তাফসীর ইবনে কাছীর)

– রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি সকাল -সন্ধ্যায় সূরা ইখলাস, ফালাক ও নাস পাঠ করে তাকে বিপদ থেকে রক্ষা করার জন্য ইহাই যথেষ্ট।’ (ইবনে কাসীর)

অতএব, একজন বিশ্বাসী মুসলমানের নিয়মিত কোরআনের শেষ তিনটি ছোট সূরা অনুশীলন করা উচিত। নিয়মিত সকাল ও সন্ধ্যায় (ফজর ও মাগরিবের পরে) তিন বার এবং অন্য তিন ওয়াক্ত নামাজের পর ১ বার করে তেলাওয়াত করা উচিত। আর বিনিময়ে আল্লাহ বান্দাকে দিবেন-

– জান্নাত।

– আল্লাহর ভালবাসা এবং সন্তুষ্টি।

– পাপ থেকে মুক্তি।

– দারিদ্র্য থেকে মুক্তি।

– দুর্যোগ থেকে মুক্তি।

– জাদু থেকে মুক্তি।

– শয়তানের আক্রমণ থেকে মুক্তি।

– সকল অনিষ্ট থেকে মুক্তি।

উপরিউক্ত আলোচনা থেকে সূরা ফালাক নাযিল এর প্রেক্ষাপট, উচ্চারণ সহ বাংলা অনুবাদ এবং এর গুরুত্ব ও ফজিলত সম্পর্কে যে ধারনা পাওয়া গেল তা গুরুত্বের সাথে যদি আমল করা যায় তবে ব্যক্তি জীবনে আমরা অনেক বিপদ আপদ থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব হবে। আল্লাহ তাআলা সকল মুসলিম উম্মাহকে সকাল ও সন্ধ্যায় নিয়মিত সূরা ইখলাস, ফালাক ও নাস পাঠ করার তাওফিক দান করুন। হাদিসে ঘোষিত ফযীলত ও সুবিধা সমূহ পাওয়ার তাওফিক দান করুন। আমীন।

sura falak

surah falaq

surah falaq bangla

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x
error: Content is protected !!