পুলসিরাত কি? মুমিনদের জন্য পুলসিরাত কেমন হবে?

পুলসিরাত কি?

পুলসিরাত কি তা সম্পর্কে আজ আমরা একটা পূর্ণাঙ্গ ধারনা পাবো বলে আশা করছি। পুলসিরাত হচ্ছে মূলত জাহান্নামের উপর স্থাপন করা একটা সেতুকে বোঝায় যার উপর দিয়ে মুসলমানরা জান্নাতে যাবে।

 

পুলসিরাত কারা অতিক্রম করতে পারবে

শুধুমাত্র মুসলমানরাই পুলসিরাত পার হতে পারবে। আর কাফের ও মুশরিকদের প্রত্যেক দলই যারা পৃথিবীতে মূর্তি পূজা করত, যেমন শয়তান এবং এই জাতীয় মিথ্যা উপাস্যদের অনুসরণ করবে, তারাই তাদের পালনকর্তার কাছে সর্বপ্রথম জাহান্নামে পতিত হবে।

তারপর থাকবে তারা, যারা বাহ্যিকভাবে মনে হতে পারে আল্লাহর ইবাদত করছে। প্রকৃতপক্ষে তারা ভণ্ড। তাদের জন্য পুলসিরাত নির্ধারণ করা হবে। অতঃপর যে বিশেষ জ্যোতিতে কেবল মুমিন ও মুনাফিকদের অন্তর্ভুক্ত হবে, তাকে সেজদা করা অসম্ভব করে মুমিনদের থেকে বিচ্ছিন্ন করা হবে। তারপর তারা জাহান্নামে ফিরে যাবে। আর মুমিনগণ পুলসিরাত অতিক্রম করে জান্নাতে পৌঁছাবে।

গণনা ও পরিমাপ প্রক্রিয়া শেষ হলেই পুলসিরাত পার হওয়ার কাজ শুরু হবে। এরপর থেকে মানুষ বাধ্য হবে পুলসিরাত পার হতে। যেমন আল্লাহ তাআলা বলেন:

তোমাদের মধ্যে এমন কেউ নেই, যে তথায় পৌঁছবে না। এটা আপনার পালনকর্তার অনিবার্য ফয়সালা। অত:পর আমি মুত্তাকীদের উদ্ধার করব এবং জালেমদেরকে সেখানে নতজানু অবস্থায় ছেড়ে দেব। {সূরা মারইয়াম:৭১-৭২}

পুলসিরাত

 

পুলসিরাত এর বিবরণ

সাহাবী আবু সাঈদ খুদরী রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে পুলসিরাতের বর্ণনা সহ হাদীসটি বর্ণনা করেছেন। বলা হয়ঃ হে আল্লাহর রাসূলঃ পুলসিরাত কি? রাসূল (সঃ) বলেছেন: এটি অত্যন্ত পিচ্ছিল একটি জায়গা, যেখানে আছে বড়শী ও বাঁকা হুক এবং নজদে উৎপন্ন ছোট ছোট কাঁটা বিশিষ্ট সা’দান নামক এক প্রকার কাঁটা। ঈমানদাররা চোখের পলক, বিজলী, বাতাস, পাখী ও উন্নত জাতের দ্রুতগামী অশ্ব এবং অন্যান্য জন্তুর ন্যায় দ্রুতবেগে পার হয়ে যাবে। কতেক সহী-সালামতে পার হবে, কাঁটার আঘাত প্রাপ্ত থাকবে ঝুলন্ত আর কেউ কেউ জাহান্নামের আগুনে জ্বলসে যাবে। [২৯]

 

পুলসিরাত সর্বপ্রথম কে অতিক্রম করবে

নবী মুহাম্মাদ (সাঃ) ও তাঁর অনুসারীরাই সর্বপ্রথম পুলসিরাত অতিক্রম করবেন। শুধুমাত্র মুমিনরাই পুলসিরাত পার হতে পারে। তাদের ঈমান ও আমলের অনুপাতে তাদের নূর দেওয়া হবে। তারপর তার ভিত্তিতে তারা পুলসিরাত অতিক্রম করবে। আমানত ও রেহেমকে ছেড়ে দেওয়া হবে এবং তারা এসে পুলসিরাতের ডান ও বাম পাশে দাঁড়াবে। সেদিন রাসুলদের দোয়া হবে: হে আল্লাহ আমাকে শান্তি ও নিরাপত্তা দান করুন।

প্রখ্যাত সাহাবী আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম একটি হাদিসে একটি স্বপ্নের বর্ণনা দিয়ে বলেছেন: সেদিন রাসূল ছাড়া আর কেউ কথা বলবে না। রাসুলদের দোয়া হবে: হে আল্লাহ শান্তি ও নিরাপত্তা দান করুন।

 

পুলসিরাত পার হওয়ার পর মুমিনদের অবস্থা

সাহাবী আবু সাঈদ খুদরী (রা.) বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন: মুমিনদেরকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেওয়া হবে, অতঃপর তাদেরকে জান্নাতের মধ্যবর্তী একটি সেতুর কাছে বন্দী করে রাখা হবে। জাহান্নাম, এবং প্রতিশোধ নেওয়া হবে তাদের কাছ থেকে যাদের উপর জুলুম করা হয়েছিল, তারপর তারা নিজেদেরকে পবিত্র ও পরিশুদ্ধ করে জান্নাতে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। সেই সত্তার শপথ যার হাতে আমার জীবন, তারা প্রত্যেকেই জানবে জান্নাতে তার বাসস্থান পৃথিবীর আবাসের চেয়েও ভালো।

আল্লাহ আমাদের সকল মুমিন ও মুসলিম ভাই ও বোনদের পুলসিরাত অতিক্রম করা সহজ করে দিন, আমীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x
error: Content is protected !!