নামাজ ভঙ্গের কারণ

নামাজ ইসলামের একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং দ্বিতীয় স্তম্ভ। যার স্থান ঈমানের পরে। নামাজে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করা প্রত্যেক মুমিনের একমাত্র কর্তব্য। নামাজ বাতিল বা ভঙ্গ হওয়ার কারণ জানা জরুরি। আজ আমরা নামাজ ভঙ্গের কারণ সম্পর্কে জানবো। যেমন নামায সঠিক হওয়ার জন্য কিছু নিয়ম আছে, তেমনি কিছু জিনিস আছে যা নামায ভেঙ্গে দিতে পারে। নামাজ ভঙ্গের এসব কারণ সম্পর্কে অজ্ঞতার কারণে অনেক সময় আমাদের নামাজ নষ্ট হয়ে যায়। নিন্মে নামাজ ভঙ্গের কারণ গুলো তুলে ধরা হলো-

নামাজ ভঙ্গের কারণ

 

নামাজ ভঙ্গের কারণ

(১) নামাজে অশুদ্ধ পড়া। নামাজের ভেতর কিরআতে যদি এমন পরিবর্তন হয়, যার ফলে কোরআনের অর্থ ও উদ্দেশ্য সম্পূর্ণ পাল্টে যায়, তাহলে নামাজ ভেঙে যাবে, তা আবার আদায় করা ওয়াজিব হবে।

(২) নামাজের ভেতর কথা বলা। নামাজে এমন কোনো অর্থবোধক শব্দ করা, যা সাধারণ কথার অন্তর্ভুক্ত হয়ে যায়। (হোক সেটা এক অক্ষর বা দুই অক্ষরে ঘটিত) তাহলে নামাজ ভেঙে যাবে।

(৩) কোনো লোককে সালাম। নামাজরত অবস্থায় কোনো লোককে সালাম দিলে নামাজ ভেঙে যায়।

(৪) নামাজে সালামের উত্তর দেওয়া। নামাজরত অবস্থায় কারো সালামের উত্তর দেওয়া নামাজ ভঙ্গকারী কাজ।

(৫) নামাজে উঃ, আঃ শব্দ করা। নামাজরত অবস্থায় কোনো ব্যথা কিংবা দুঃখের কারণে উঃ, আঃ শব্দ করলে নামাজ ভেঙে যাবে।

(৬) বিনা ওজরে কাশি দেওয়া। অপ্রয়োজনে কাশি দেওয়ার দ্বারাও নামাজ ভেঙে যায়।

(৭) আমলে কাসির করা। ফিকাহবিদরা আমলে কাসিরের সংজ্ঞা দিতে গিয়ে বিভিন্ন মতামত ব্যক্ত করেছেন। তন্মধ্যে বিশুদ্ধ ও নির্ভরযোগ্য মত হলো, কোনো মুসল্লির এমন কাজে লিপ্ত হওয়া, যার কারণে দূর থেকে কেউ দেখলে তার মনে প্রবল ধারণা জন্মে যে ওই ব্যক্তি নামাজরত নয়।

(৮) বিপদে কিংবা বেদনায় শব্দ করে কাঁদা। দুনিয়াবি কোনো বিপদাপদ কিংবা দুঃখের কারণে শব্দ করে কাঁদলে নামাজ ভেঙে যায়।

(৯) তিন তাসবিহ পরিমাণ সতর খুলে থাকা।

(১০) নামাজরত অবস্থায় মুক্তাদি ছাড়া অন্য ব্যক্তির লোকমা (ভুল সংশোধন) লওয়া। যেমন—ইমাম কিরাতে ভুল করছেন, সঙ্গে সঙ্গে নামাজের বাইরের কোনো লোক লোকমা দিলে তা গ্রহণ করা।

(১১) সুসংবাদ বা দুঃসংবাদে উত্তর দেওয়া। সুসংবাদ অথবা দুঃসংবাদের উত্তর দেওয়া দুনিয়াবি কথার শামিল। তাই এর দ্বারা নামাজ ভেঙে যায়।

(১২) নাপাক জায়গায় সিজদা করা। নামাজের জায়গা পবিত্র হওয়া জরুরি। অর্থাৎ নামাজ পড়ার সময় নামাজি ব্যক্তির শরীর যেসব জায়গা স্পর্শ করে সে জায়গাগুলো পবিত্র হওয়া নামাজ শুদ্ধ হওয়ার জন্য অপরিহার্য শর্ত। তাই নাপাক বা অপবিত্র জায়গায় সিজদা করলে নামাজ ভেঙে যাবে।

(১৩) নামাজের মধ্যে কিবলার দিক থেকে সিনা ঘুুরে যাওয়া। কোনো কারণে কিবলার দিক থেকে সিনা (বুক) ঘুরে গেলে নামাজ ভেঙে যায়। তবে যানবাহনে নামাজের ক্ষেত্রে মাসআলা ভিন্ন।

(১৪) নামাজে কোরআন শরিফ দেখে পড়া। নামাজরত অবস্থায় কোরআন শরিফ দেখে দেখে পড়লে নামাজ ভেঙে যায়। তবে সৌদি আরবের আলেমরা এ মাসআলার ক্ষেত্রে ভিন্নমত পোষণ করেন।

(১৫) নামাজে শব্দ করে হাসা। নামাজে শব্দ করে অট্টহাসি দিলে অজুসহ ভেঙে যায়।

(১৬) নামাজে সাংসারিক কোনো বিষয় প্রার্থনা করা। নামাজরত অবস্থায় সাংসারিক/দুনিয়াবি কোনো দোয়া করলে হানাফি মাজহাব মতে নামাজ ভেঙে যায়। তবে এ মাসআলার ক্ষেত্রে অন্য মাজহাবের ভিন্নমত আছে।

(১৭) হাসির জবাব দেওয়া। নামাজরত অবস্থায় কারো হাসির (উত্তরে ইয়ারহামুকাল্লাহ বললে) উত্তর দেওয়া কথা বলার নামান্তর। এর দ্বারা নামাজ ভেঙে যায়।

(১৮) নামাজে খাওয়া ও পান করা।

(১৯) ইমামের আগে মুক্তাদি দাঁড়ানো। মুক্তাদির পায়ের গোড়ালি ইমামের আগে চলে গেলে নামাজ ভেঙে যাবে। তবে যদি (দুজন জামাতের সঙ্গে নামাজের ক্ষেত্রে) মুক্তাদি ইমামের পায়ের গোড়ালির পেছনেই দাঁড়ায়; কিন্তু তিনি লম্বা হওয়ার কারণে তাঁর সিজদা ইমামকে অতিক্রম করে যায়, তাহলে তাঁর নামাজের কোনো ক্ষতি হবে না।

আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে এসব বিষয়ে যথাযথ খেয়াল রেখে যত্ন সহকারে নামাজ আদায় করার তাওফীক দান করুন। আমীন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

x
error: Content is protected !!